Anudhyan Mass Communication and Journalism
University of Rajshahi
A practice news portal of Department of Mass Communication & Journalism of University of Rajshahi
শিরোনাম
পরীক্ষার সাত মাস পরেও ফল প্রকাশ না হওয়ার প্রতিবাদে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থীরা।গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষাক্রম বিষয়ে আলোচনারাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক নিউজলেটার বিদ্যাবার্তা’র দ্বিতীয় সংখ্যা প্রকাশিত হয়েছেতিস্তা নদীতে খনন ও বাঁধ নির্মাণের দাবি জানিয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত রংপুর বিভাগের শিক্ষার্থীরারাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক (সম্মান) প্রথম বষের্র ভর্তি-পরীক্ষা আগামী ২০-২২ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে

৭ মার্চের ভাষণ জাতির ভাগ্য-ইতিহাসের বাঁক বদলের বার্তা : উপাচার্য

অনুধ্যান

প্রকাশিত : ০৭:২০ পিএম, ৭ মার্চ ২০১৯ বৃহস্পতিবার

বক্তব্য দিচ্ছেন উপ-উপাচার্য প্রফেসর আনন্দ কুমার সাহা

বক্তব্য দিচ্ছেন উপ-উপাচার্য প্রফেসর আনন্দ কুমার সাহা

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর এম আব্দুস সোবহান বলেছেন, বাঙালি জাতির ইতিহাসে সর্বশ্রেষ্ঠ ভাষণ হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ। এই ভাষণ পাকিস্তানী বাহিনীর শোষণ-নিপীড়নে পিষ্ট জাতিকে তার ভাগ্য পরিবর্তনে অনুপ্রাণিত করে মুক্তিকামী বাঙালিতে পরিণত করে। কালজয়ী এই ভাষণটি হয়ে উঠে বাঙালি জাতির ভাগ্য-ইতিহাসের বাঁক বদলের বার্তা।

 জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ ইউনেস্কো কর্তৃক ‘বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য‘ হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আয়োজিত আনন্দ র‌্যালির শুরুতে উপাচার্য এসব কথা বলেন। আজ সকাল ১০টায় র‌্যালিটি মুক্তিযুদ্ধ স্মারক ভাস্কর্য সাবাস বাংলাদেশ প্রাঙ্গণ থেকে শুরু হয়ে ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ শেষে শহীদ মিনার চত্বরে শেষ হয়।

 বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র উপদেষ্টা প্রফেসর লায়লা আরজুমান বানুর সঞ্চালনায় র‌্যালির শুরুতে আয়োজিত সংক্ষিপ্ত সভায় উপাচার্য আরো বলেন, বাঙালির জাতির মুক্তির আলোকবর্তিকা হয়ে এসেছিলো ৭ মার্চের ভাষণ। এই ভাষণকে বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্যের স্বীকৃতি দিয়ে ইউনেস্কো যেমন বঙ্গবন্ধু তথা বাঙালি জাতিকে সম্মানিত করেছে, তেমনি বাঙালি জাতির কাছেও ইউনেস্কো সম্মানিত হয়েছে।

 র‌্যালি শুরুর পূর্বে উপাচার্য প্রফেসর এম আব্দুস সোবহান সাবাস বাংলাদেশ মুক্তমঞ্চে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। সেখানে উপ-উপাচার্য প্রফেসর আনন্দ কুমার সাহা, কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান আল-আরিফ, রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর এম এ বারীসহ জেড এইচ শিকদার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর জান্নাতুল ফেরদৌস ও রাবির সাবেক উপ-উপাচার্য প্রফেসর মুহম্মদ নূরুল্লাহ্ উপস্থিত ছিলেন। এরপর সমবেত কণ্ঠে জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া হয়।

 র‌্যালিতে অন্যান্যদের মধ্যে প্রক্টর প্রফেসর লুৎফর রহমান, জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক প্রফেসর প্রভাষ কুমার কর্মকারসহ প্রশাসনের অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ ও অনুষদ অধিকর্তাবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন। শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ বিভাগীয় সভাপতিবৃন্দ, আবাসিক শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারী ও আবাসিক শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন হলের প্রাধ্যক্ষ নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের ব্যানারসহ র‌্যালিতে যোগ দেন।