Anudhyan Mass Communication and Journalism
University of Rajshahi
A practice news portal of Department of Mass Communication & Journalism of University of Rajshahi
শিরোনাম
মার্কেটিং বিভাগে শিক্ষাবৃত্তির জন্য ৫০ লাখ টাকা অনুদান দিয়েছেন বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী মাহবুবুল আলম রাজাবর্ণিল ও বিচিত্র আয়োজনে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে নববর্ষ ১৪২৬ উদযাপিত হয়েছেশেষ হলো সপ্তাহব্যাপী ডেটা জার্নালিজম কর্মশালা‘ ডেটা জার্নালিজম ইন নিউজরুম: হাউ টু ইউজ ডেটা ফর এ গুড স্টোরি‘ কর্মশালার পঞ্চম দিনে শিক্ষার্থীরা অনলাইন সংবাদ-সাইট থেকে ডেটা সংগ্রহ, ডেটা তৈরি এবং সে ডেটা আবার নতুন রূপে উপস্থাপন করার কৌশল শিখেছেন

সাংবাদিকতায় প্রযুক্তি ব্যাবহারে অনন্য উদ্ভাবনী ধারণা

অনুধ্যান

প্রকাশিত : ০৮:৩৩ পিএম, ২০ মার্চ ২০১৯ বুধবার

প্রতিটি দল তাদের কাজ বিচারকমণ্ডলীর সামনে উপস্থাপন করেছেন

প্রতিটি দল তাদের কাজ বিচারকমণ্ডলীর সামনে উপস্থাপন করেছেন

রাশেদ শুভ্র: ঘন্টাখানিক আগে প্রেজেন্টেশন শেষ হয়েছে। দর্শক সাড়িতে বসে আছেন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করা ছয়টি দলের সদস্যরা। সবার চোখেমুখে উত্তেজনার ছাপ, স্থির হয়ে থাকতে পারছেন না কেউ। হলভর্তি দর্শকের সবাই উৎসুক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছেন মঞ্চে দাঁড়িয়ে থাকা ওলগা ক্যাসেলম্যানের দিকে। উত্তেজনাকে আরও বাড়িয়ে তুলছেন তিনি। বার কয়েক বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করতে গিয়েও থেমে যাচ্ছেন। হলজুড়ে পিনপতন নীরবতার মাঝে প্রতিযোগীদের বুকের ধুকপুকুনি কমছে না কোনোমতেই। হঠাৎ দর্শক সাঁড়ি থেকে হৈ-হুল্লোর করে লাফিয়ে উঠলেন ছয় জনের একটি দল। খানিক পরে আরও ছয়জন, তারপর আরও ছয়জন। তখন আর ক্যাসেলম্যানের কোনো কথাই শোনা যাচ্ছে না। হলজুড়ে তিন দলের ১৮ জনের উল্লাস আর হৈ-হুল্লোর। কারণ, ‘মিডিয়া টেক চ্যালেঞ্জ বুট ক্যাম্প-২০১৯’ প্রতিযোগিতায় সাংবাদিকতায় প্রযুক্তি ব্যাবহারের অনন্য উদ্ভাবনী ধারণা দিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে এই তিন দল।

 রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘মিডিয়া টেক চ্যালেঞ্জ বুট ক্যাম্প-২০১৯’ কর্মশালা ও প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয় গত ৮-১০ মার্চ। জার্মানির ডয়েচে ভেলে অ্যাকাডেমির সহযোগিতায় রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ এবং কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের যৌথ উদ্যোগে তিনদিনব্যাপী এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

 এ প্রতিযোগিতায় যৌথভাবে চ্যাম্পিয়ান হয় ‘স্টেপ ওয়ান`, ‘ফেক বাস্টারস`, এবং ‘স্পিং টু সামার` নামের এ তিন গ্রুপ। ১০ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ের ডীনস কমপ্লেক্সের কনফারেন্স কক্ষে এ তিন দলকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করেন বিচারকগণ। এছাড়াও রানার্স-আপ হয় ‘টিম এভেনজারস`, ‘ইনভিজিবল` ও ‘ডিজেএম-৪`। প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন তিনটি দলকে দুই লক্ষ ও রানার্স-আপ তিন দলকে ৫০ হাজার করে টাকা দেয়া হয়। কর্মশালায় প্রদর্শিত প্রকল্পে কাজ করার শর্তে এই টাকা দেয়া হয়।

এটি মূলত ‘মিডিয়ার বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ প্রযুক্তির সাহায্যে সমাধানের কৌশল’ সম্পর্কিত প্রতিযোগিতা। ভুল সংবাদ চিহ্নিতকরণ ও প্রতিরোধ, ফেসবুক লাইভসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সাংবাদিকতার বিস্তার, সামাজিক বিভিন্ন সমস্যা চিহ্নিতকরণ ও সমাধান, অনলাইন প্রতিষ্ঠানকে আরো সমৃদ্ধ ও আর্থিকভাবে লাভবানের বিভিন্ন কৌশল বের করেন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী ছয়টি দল এবং সে অনুযায়ী অ্যাপস্ ও ওয়েবসাইটও তৈরি করেন তাঁরা।

প্রতিযোগিতার প্রথম দিন মেন্টরগণ দলগুলোর কাছে অনলাইন ও অ্যাপস্ভিত্তিক বিভিন্ন সমস্যা সমাধান সম্পর্কে ধারণা জানতে চান। এসময় প্রতিযোগীরা তাঁদের নিজস্ব ধারণা উপস্থাপন করেন এবং সেই ধারণা অনুযায়ী অ্যাপ্স ও ওয়েবসাইট তৈরির কাজ শুরু করেন। এর মধ্যে ‘স্টেপ ওয়ান’ ও ‘ফেক বাস্টারস’র সদস্যরা ভুল সংবাদ কিভাবে সহজে চিহ্নিত করা যায় সে বিষয়ে, ‘স্প্রিং টু সামার’ পরিবেশ দূষণ নিয়ে, ‘ডিজেএম ৪’ পাবলিক বাসে যদি কোনো নারী নির্যাতনের শিকার হন তাহলে কিভাবে আইনি সহায়তা নিবেন- তার ওপর অ্যাপস তৈরির কাজ করেন, এবং ‘টিম  অ্যভেনজারস’র সদস্যরা নারীর ক্ষমতায়ন নিয়ে ওয়েবসাইট তৈরির কাজ কাজ করেন। দ্বিতীয় দিনে প্রতিযোগী দলগুলো তাদের তৈরি করা অ্যাপের ‘প্রটোটাইপ’ এর কাজ করে।

প্রতিযোগিতার শেষ দিন ১০ মার্চ বিকেল ৩ টায় প্রতিটি দল তাদের কাজ বিচারকমণ্ডলীর সামনে উপস্থাপন করেন। বিষয়বস্তুর মান ও কাজের ওপর নির্ভর করে ‘স্টেপ ওয়ান’, ‘ফেক বাস্টারস’, এবং  ‘স্পিং টু সামার’ দলকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হয়। এসময় বিচারক ছিলেন ডয়েচে ভেলের গবেষক ওলগা কিসেলম্যান, সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার নূরে সাওয়াল সিদ্দিক ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক বখতিয়ার আহমেদ।

পুরো আয়োজনে ডয়েচে ভেলে একাডেমির পক্ষ থেকে মেন্টর হিসাবে ছিলেন ওলগা ক্যাসেলম্যান, ড্যানিয়েল এবং  মারকেস বোয়েস। স্থানীয় মেন্টর  হিসাবে উপস্থিত ছিলেন নূরে সাওয়াল সিদ্দিক এবং বিশ্বজিৎ পান্ডে। গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল মামুন-এর সভাপতিত্বে প্রতিযোগিতার সমাপনী ও পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ফকরুল ইসলাম। প্রতিযোগিতায় মিডিয়া পার্টনার ছিলো প্রথম আলো, চ্যানেল আই, রেডিও টু’ডে ও দ্য ডেইলি স্টার।