Anudhyan Mass Communication and Journalism
University of Rajshahi
A practice news portal of Department of Mass Communication & Journalism of University of Rajshahi
শিরোনাম
পরীক্ষার সাত মাস পরেও ফল প্রকাশ না হওয়ার প্রতিবাদে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থীরা।গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষাক্রম বিষয়ে আলোচনারাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক নিউজলেটার বিদ্যাবার্তা’র দ্বিতীয় সংখ্যা প্রকাশিত হয়েছেতিস্তা নদীতে খনন ও বাঁধ নির্মাণের দাবি জানিয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত রংপুর বিভাগের শিক্ষার্থীরারাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক (সম্মান) প্রথম বষের্র ভর্তি-পরীক্ষা আগামী ২০-২২ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে

মশার উপদ্রবে ব্যহত পড়াশুনা

অনুধ্যান প্রতিবেদক

অনুধ্যান

প্রকাশিত : ১১:০২ পিএম, ২ মার্চ ২০১৭ বৃহস্পতিবার

নোংরা জলাশয়ে সহজেই মশার বিস্তান ঘটে

নোংরা জলাশয়ে সহজেই মশার বিস্তান ঘটে

মো. মাহামুদুল হাসান: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে  মশার উপদ্রব বেড়ে গেছে। মশার কামড়ে অতিষ্ঠ হয়ে পড়ছে শিক্ষার্থীরা। বিশেষ করে সন্ধ্যা নামলেই আবাসিক হলগুলোতে শুরু হচ্ছে মশার  উৎপাত। চেয়ার-টেবিলে নয়, পড়ালেখার কাজটাও তাই সারতে হচ্ছে মশারীর ভিতরে বসে।

মশার উৎপাতের কারণ জানাতে সোহরাওয়ার্দী হলের ছাত্র রোকনুজ্জামান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলোর পাশের ঝোপ-জঙ্গল ও ড্রেনগুলো নিয়মিত পরিষ্কার না করায় ক্যাম্পাসে মশার বিস্তার ঘটেছে। ফলে আমাদের পড়াশুনা ব্যহত হচ্ছে।

জিয়াউর রহমান হলের ছাত্র মিনহাজ অভিযোগ করে বলেন, মশার কামড়েই তিনি জ্বরে আক্রান্ত হয়েছেন। তার মতে, দীর্ঘদিন ধরে পরিষ্কার না করায় হলের আশপাশে ময়লা-আবর্জনা ও ঝোড়-জঙ্গল বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া মাঠের বিভিন্ন জায়গায় ঘাস বড় হওয়ায় মশার উৎপাত বৃদ্ধি পেয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল, শহীদ জিয়াউর রহমান হল ও সোহরাওয়ার্দী হল, মাদার বখশ হলসহ শিক্ষকদের আবাসিক এলাকায় মশার প্রকোপ বেড়েছে ।

ভূক্তভোগীরা জানান, মশার অত্যাচার দিন দিন বেড়েই চলছে। সন্ধ্যা নামতেই মশার এই অত্যাচার বাড়তে থাকে পুরো ক্যাম্পাসে। মশার কামড়ে পড়ালেখাসহ নির্দিষ্ট স্থানগুলোতে একত্রে বসা কিংবা আড্ডা দেয়া এখন অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে। এমনকি রাতে মশারি টাঙানো ছাড়া ঘুমানো যাচ্ছে না।

বিভিন্ন হলের শিক্ষার্থীরা জানান, কয়েক দিন আগে মেশিন দিয়ে মশা মারার ওষুধ স্প্রে করা হয়েছে বিভিন্ন হলে; কিন্তু তার পরেও মশার উপদ্রব কমছে না।

হলগুলোর পাশের ঝোপ-জঙ্গল ও ড্রেনগুলো নিয়মিত পরিষ্কার না করায় ক্যাম্পাসে মশার বিস্তার ঘটেছে

মেশিন দিয়ে ওষুধ স্প্রে করার পরও কেন মশার উপদ্রব কমছে না?  এ-বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে মাদার বখশ হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. তাজুল ইসলাম বলেন, সম্প্রতি হলগুলোতে মশা নিধন স্প্রে করা হয়েছে, এছাড়া হল এবং হলের আশেপাশের ঝোপ-জঙ্গলগুলোও পরিষ্কার করা হয়েছে। কিন্তু বর্ষাকাল হওয়ায় ক্যাম্পাসের বিভিন্ন স্থানে পানি জমে মশার উপদ্রব বেড়ে যাচ্ছে বলে জানান তিনি।

এমন পরিস্থিতিতে ব্যাহত হচ্ছে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা, ঘুম, খাওয়া-দাওয়াসহ আনুষঙ্গিক কাজকর্ম। ইতিমধ্যে মশাবাহিত রোগে কয়েক জন আবাসিক শিক্ষার্থীর অসুস্থ হওয়ার খবরও পাওয়া গেছে।