Anudhyan Mass Communication and Journalism
University of Rajshahi
A practice news portal of Department of Mass Communication & Journalism of University of Rajshahi
শিরোনাম
পরীক্ষার সাত মাস পরেও ফল প্রকাশ না হওয়ার প্রতিবাদে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থীরা।গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষাক্রম বিষয়ে আলোচনারাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক নিউজলেটার বিদ্যাবার্তা’র দ্বিতীয় সংখ্যা প্রকাশিত হয়েছেতিস্তা নদীতে খনন ও বাঁধ নির্মাণের দাবি জানিয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত রংপুর বিভাগের শিক্ষার্থীরারাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক (সম্মান) প্রথম বষের্র ভর্তি-পরীক্ষা আগামী ২০-২২ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে

ধর্ষণ ও হত্যার প্রতিবাদে সাংস্কৃতিক সমাবেশ

অনুধ্যান

প্রকাশিত : ০৭:১৮ পিএম, ২৩ জুলাই ২০১৯ মঙ্গলবার

নারী-শিশু ধর্ষণ ও হত্যার প্রতিবাদে সাংস্কৃতিক সমাবেশ ও পথনাট্য প্রদর্শন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় সাংস্কৃতিক জোট

নারী-শিশু ধর্ষণ ও হত্যার প্রতিবাদে সাংস্কৃতিক সমাবেশ ও পথনাট্য প্রদর্শন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় সাংস্কৃতিক জোট

উজ্জ্বল হোসেন : দেশব্যাপী নারী-শিশু ধর্ষণ ও হত্যার প্রতিবাদে সাংস্কৃতিক সমাবেশ ও পথনাট্য প্রদর্শন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় সাংস্কৃতিক জোট। মঙ্গলবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির পিছনে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে ধর্ষণ ও হত্যার প্রতিবাদে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানানো হয়। সেইসাথে ধর্ষকের সর্বোচ্চ বিচার নিশ্চিত করার দাবি জানান বক্তারা।

কেন্দ্রীয় সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক তমালিকা সাহার সঞ্চালনায় সাংস্কৃতিক সমাবেশে বক্তব্য দেন নাট্যকলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সুখন সরকার। তিনি বলেন, সারাদেশে ধর্ষণের প্রতিবাদে এ পথ-নাটক। মানুষের মাঝে জনসচেতনতা বোধ জাগ্রত করার জন্যই মূলত সাংস্কৃতিক সমাবেশ। জনসাধারণের নৈতিকতা বৃদ্ধি করলে ধর্ষণ রোধ করা সম্ভব।

তিনি আরও বলেন, মানবতা আজ নিম্নতর পর্যায়ে নেমে গেছে। এর প্রধান কারণ, আমরা প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষিত হতে পারছি না। মূল্যবোধ ও নৈতিকতার শিক্ষা নিতে পারছি না। সমাজের প্রত্যেকটি পর্যায়ে নৈতিকতা ও আদর্শের শিক্ষাকে ছড়িয়ে দিতে হবে। এজন্য প্রয়োজন একটি শক্তিশালী সামাজিক আন্দোলন।

 পথনাট্য সম্পর্কে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক তমালিকা সাহা বলেন, আজকের নাটকের নাম ‘বিচারের দাবি’। এতে দেখানো হয়েছে, একজন ছাত্রী স্কুলে যাবার পথে ধর্ষিত হন। এরপর বর্তমান প্রেক্ষাপটে বিচার ব্যবস্থার দিকগুলো তুলে ধরা হয়েছে। তাছাড়া রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে ওই ছাত্রীকে ধর্ষণের বিচার প্রভাবিত করার বিষয়গুলো তুলে ধরা হয়েছে। মূলত সমাজের যে বিচারহীনতার সংস্কৃতি চলছে, তা তুলে ধরা হয়েছে নাটকের মাধ্যমে।

সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন কেন্দ্রীয় সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আজম হোসেন, উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক আ.স.ম. শিবলী সিহাব, তীর্থকের সভাপতি মামুন হোসেন প্রমুখ।

সাংস্কৃতিক সমাবেশে বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্য সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।