Anudhyan Mass Communication and Journalism
University of Rajshahi
A practice news portal of Department of Mass Communication & Journalism of University of Rajshahi
শিরোনাম
পরীক্ষার সাত মাস পরেও ফল প্রকাশ না হওয়ার প্রতিবাদে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থীরা।গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষাক্রম বিষয়ে আলোচনারাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক নিউজলেটার বিদ্যাবার্তা’র দ্বিতীয় সংখ্যা প্রকাশিত হয়েছেতিস্তা নদীতে খনন ও বাঁধ নির্মাণের দাবি জানিয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত রংপুর বিভাগের শিক্ষার্থীরারাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক (সম্মান) প্রথম বষের্র ভর্তি-পরীক্ষা আগামী ২০-২২ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে

ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত রাবির শতাধিক গাছপালা

অনুধ্যান প্রতিবেদক

অনুধ্যান

প্রকাশিত : ০৮:৪৭ পিএম, ২ মার্চ ২০১৭ বৃহস্পতিবার

ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত রাবির শতাধিক গাছপালা

ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত রাবির শতাধিক গাছপালা

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে গত মাসে ঘটে যাওয়া দুই দফা ঝড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শতাধিক গাছ ভেঙ্গে ও সমূলে উপড়ে যায়। এতে ক্যাম্পাসের বিদ্যুৎ ও যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ফলে ভোগান্তিতে পড়েন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি প্রকল্প সূত্রে জানা যায়, গত মাসে ভেঙ্গে যাওয়া গাছগুলোর মধ্যে রয়েছে বাবলা গাছ ১৮টি, আকাশমনি ২১টি, ইউক্যালিপটাস ১২টি, শিশু গাছ ৭টি, মেহগনি ১৫টি, কৃষ্ণচূড়া ৪টি, কড়ই ৫টি, অর্জুন ৪টি, আম ৪টি, বকুল ১টি, জাম ২টি, কাঁঠাল ১টি।

গত ৪ এপ্রিল কালবৈশাখী ঝড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্ধশতাধিক গাছ ভেঙ্গে যাওয়ার কয়েকদিন আগের আরেকটি ঝড়ে আরো শতাধিক গাছ ভেঙ্গে যায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্থানে বিদ্যুতের খুঁটি ও বিভিন্ন স্থাপনা ভেঙ্গে যায়। ছিঁড়ে পড়ে যায় বিদ্যুতের তার। এতে পুরো বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর ড. ফিরোজ আলম বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকাংশ গাছ বেশ পুরনো। সেকারণে এসব গাছের ভিতরের টিস্যুগুলো নষ্ট হয়ে গেছে এবং টিকে থাকার ক্ষমতা কমে যাচ্ছে। রাস্তার পাশের গাছগুলো বেশি পড়ার কারণ হিসেবে অপরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থাকে দায়ী করেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, ঝড় সহ্য করতে পারে এমন গাছ বেশি লাগাতে হবে। রাস্তার পাশে গাছ লাগানোর ক্ষেত্রে পরিকল্পনা মতো দেশি গাছ লাগাতে হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী আবুল কালাম আজাদ বলেন, এ বছর চলতি মৌসুমে দুই বার ঝড় হয়েছে। ক্যাম্পাসে অনেক বেশি গাছপালা থাকায় ঝড়ের কবলে পড়ে অল্পতেই গাছপালা ভেঙ্গে বিদ্যুতিক তার ও খুটির উপর আছড়ে পড়ে প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি হয়। যেসব তার ছিঁড়ে যায় সেগুলো তো জোড়াতালি দেয়া ছাড়া আর কোনো উপায় থাকে না। বিদ্যুতের খুঁটিগুলো নতুন করে মেরামত করা হয় নিয়মিত।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি প্রকল্পের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা প্রকৌশলী এমরান আলী বলেন, ক্যাম্পাসে বিভিন্ন ধরনের গাছপালা আছে। ক্যাম্পাসে শহরের মতো বিল্ডিং নেই। ফলে বাতাস সরাসরি গাছের ওপর আঘাত হানে। জোরালো বাতাসে তাই গাছ পড়ে যায়। ঝড়ে গাছ পড়ে বা ডাল ভেঙ্গে যেন বৈদ্যুতিক তার ও স্থাপনা ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সেজন্য রাস্তার পাশে ডালপালা ছেঁটে দেয়া হয়, অনেক গাছও কাটা হয়। পুরনো গাছ কাটার পাশাপাশি ক্যাস্পাসে গাছ লাগানোও হয়।

পরিকল্পিতভাবে গাছ লাগানোর ব্যাপারে তিনি বলেন, প্রতি বছর গাছ লাগানো হয়। গাছ লাগানোর ক্ষেত্রে সার্বিক বিষয় মাথায় রেখে পরিকল্পনামাফিক কাজ করা করা হবে। যাতে ঝড়ে বেশিমাত্রায় গাছ-পালা ক্ষতিগ্রস্ত না হয়।