Anudhyan Mass Communication and Journalism
University of Rajshahi
A practice news portal of Department of Mass Communication & Journalism of University of Rajshahi
শিরোনাম
পরীক্ষার সাত মাস পরেও ফল প্রকাশ না হওয়ার প্রতিবাদে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থীরা।গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষাক্রম বিষয়ে আলোচনারাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক নিউজলেটার বিদ্যাবার্তা’র দ্বিতীয় সংখ্যা প্রকাশিত হয়েছেতিস্তা নদীতে খনন ও বাঁধ নির্মাণের দাবি জানিয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত রংপুর বিভাগের শিক্ষার্থীরারাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক (সম্মান) প্রথম বষের্র ভর্তি-পরীক্ষা আগামী ২০-২২ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে

উপ-উপাচার্য হলেন প্রফেসর ড. আনন্দ কুমার সাহা

অনুধ্যান

প্রকাশিত : ১০:২১ এএম, ১৮ জুলাই ২০১৭ মঙ্গলবার

উপ-উপাচার্য হলেন প্রফেসর ড. আনন্দ কুমার সাহা

উপ-উপাচার্য হলেন প্রফেসর ড. আনন্দ কুমার সাহা

অনুধ্যান ডেস্ক: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য হিসেবে প্রফেসর ড. আনন্দ কুমার সাহা নিয়োগ পেয়েছেন। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জারি করা এক প্রজ্ঞাপনে  এই ঘোষণা দেওয়া হয়েছে । তিনি চার বছরের জন্য এই দায়িত্ব পেয়েছেন। যোগদানের দিন হতে এই মেয়াদ কার্যকরী হবে।

২০ মার্চ ২০১৭ সর্বশেষ উপাচার্য  প্রফেসর ড. মুহম্মদ মিজানউদ্দিন ও উপ-উপাচার্য  প্রফেসর ড. চৌধুরী সারওয়ার জাহান-এর মেয়াদ শেষ হওয়ার পর অবশেষে দীর্ঘ দেড় মাস পর গত ৭ মে প্রফেসর ড. এম. আবদুস সোবহান উপাচার্য পদে নিয়োগ পেলেও উপ-উপাচার্য পদে সেদিন কাউকে নিয়োগ দেওয়া হয় নি। প্রায় চার মাস পদটি শূন্য থাকার পর উপ-উপাচার্য পদে প্রফেসর ড. আনন্দ কুমার সাহা তাঁর পূর্বসুরী প্রফেসর ড. চৌধুরী সারওয়ার জাহান-এর স্থলাভিষিক্ত হলেন।

প্রাণিবিদ্যা বিভাগের শিক্ষক প্রফেসর ড. আনন্দ কুমার সাহা ১৯৮৭ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাষক পদে যোগদান করেন। ভারতের পুনে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডিপ্রাপ্ত প্রফেসর আনন্দ ১৯৯০ সালে সহকারী অধ্যাপক, ১৯৯৬ সালে সহযোগী অধ্যাপক এবং ২০০২ সালে প্রফেসর পদে উন্নীত হন। পরিবেশ অণুজীববিজ্ঞানে বিশেষজ্ঞ এই প্রফেসরের এই পর্যন্ত ৩৫টি গবেষণা-প্রবন্ধ দেশি-বিদেশি জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। প্রফেসর ড. আনন্দ কুমার সাহা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি (২০১৫) ও সাধারণ সম্পাদক (২০১০) এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের আহবায়কের (২০১২-১৩) দায়িত্বও পালন করেছেন। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট সভারও সদস্য হিসেবে ইতিপূর্বে নির্বাচিত হয়েছেন।